তখন রাত্রী ছিলো/ বাংলা কষ্টের কবিতা / what is time

What is Time

তখন রাত্রী ছিলো/ বাংলা কষ্টের কবিতা / what is time

তখন রাত্রী ছিলো


এ দারুন শীতেও কবিতা আমার বর্ষার রুপ ধারন করেছে।
ঘড়িতে তিনটা বেজে ১৫ মিনিট,
টিক টক টিক টক শব্দে সময় ছুটে ছলেছে আপন মনে।
নিকোটিনের বিষে সারা আকাশ ছেয়ে গ্যাছে,
কুয়াশায় চাদর মুরি দিয়ে বসে আছে কিছু প্রেতাত্মা।
একটা টিকটিকি ঘুলঘুলির ফোকরে বসে আমার গল্প শুনছে।
মাঝে মাঝে ঠিক ঠিক জুটিতে সারা দিচ্ছে আমায়।
আমার সঙ্গী, টিকটিকি 
কেননা সে রঙ পালটাতে পারে না।

অনুনীমা!তুমি কি শুনছ?
তোমার স্বপ্নের বাস্তবতা খুঁজে পেয়েছি,
অনুনীমা, তুমি কি জেগে আছো?
অনুনীমা,তোমার স্বপ্ন গুলোর প্রয়োজন কি শেষ হয়ে গ্যাছে!
মনে আছে কি তোমার,
বৃষ্টি ভালবাসতাম বলে আমায় এনে দিয়েছিলে প্রতিরাতের কান্না,
আমি নিয়েছি।
প্রেম চেয়েছিলাম বলে দিয়েছিলে ঘৃণা,
আমি নিয়েছি।
আমি নিয়েছি তোমার সবটুকু অভিমান,নিয়েছি তোমার স্বপ্নের নরক!

আমি অভীক,আমি নীলকান্ত,
আমি ফড়িং, ফুয়ারা আমি।
অতলান্ত আমি,আর আচিল আমার স্পন্দন।
প্রেমিকার বক্ষের ধুকপুকনি আমিও চেয়েছি।
স্তনে খুজে পেয়েছি চৈতন্য,
ব্রোথেলে যাওয়ার প্রয়োজন ছিলো না কভুও।
সপ্ত শিখায় দগ্ধ রবি, সোনা রঙ হয়ে আমার কাছে ধেয়েছে।

আমার সন্ধ্যে হয় রাত বারোটা পাঁচে,
তখন আমার পৃথীবীতে সূর্য আসে,
মদের বোতলে আমার স্বর্গ সুখ ভরা থাকে,
আমি প্রেম গিলে খাই,
সাদা পায়রায় চরে তোমার স্বপ্ন গুলোন পাঠিয়ে দিই তোমার গন্ধ দিয়ে,
ফিরে আসে পায়রা,গন্ধ নেই।

কপালে রিভালবার ঠেকিয়ে এবার প্রশ্ন করি?
অনুনীমা কার!
টিকটিকি ভয় পায়,
প্রেতাত্মারা জানালায় ভীর করে,তাদের দল ভারী হয়।
মৃত্যু? হ্যাঁ মৃত্যু!
আরো একটি আত্মহত্যা,
আরো একটি প্রান,
একটি বুলেট,মাথার খুলি,
দেয়ালে রক্তের দাগ,নিথর এক লাশ।
চোখের কোণে আশ্রু ঝড়ে পরে,
ঘড়ীতে এখন তিনটা বেজে ২১ মিনিট.!!!!

1 Comments

Previous Post Next Post